dean award
ছবি: দৈনিক সিলেট

সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিকৃবি) ভেটেরিনারি, এনিম্যাল ও বায়োমেডিক্যাল সায়েন্সেস অনুষদের বিভিন্ন লেভেলের ৬ জন মেধাবী ও কৃতি শিক্ষার্থীকে “ডিন’স এওয়ার্ড” পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে।

২২ আগস্ট মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় অনুষদীয় সম্মেলন কক্ষে এই পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয় বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ও প্রকাশনা দপ্তর। ভেটেরিনারি, এনিম্যাল ও বায়োমেডিক্যাল সায়েন্সেস অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মোঃ রাশেদ হাসনাতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ডাঃ মোঃ জামাল উদ্দিন ভূঞা।

স্বাগত বক্তব্য দিয়েছেন ডিন’স এ্যাওয়ার্ড পুরস্কার-২০২২ উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক প্রফেসর ড. রাশেদুন্নবী আকন্দ। বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মেহেদী হাসান খান, প্রফেসর ড. মোঃ মনিরুল ইসলাম, প্রফেসর ড. মোঃ ছিদ্দিকুল ইসলাম, কৃষিবিদ মো. সাজিদুল ইসলাম।

ভেটেরিনারি ছাত্রসমিতির পক্ষ থেকে বক্তব্য দিয়েছেন এসএম আতিকুল হক এবং শিমুল মজুমদার। ভেটেরিনারি, এনিম্যাল ও বায়োমেডিক্যাল সায়েন্সেস অনুষদের লেভেল-১ থেকে ডিন এ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন জান্নাতুল ফেরদৌস রিতা, জয় দেবনাথ, সানজিদা আক্তার শ্রাবন্তি। লেভেল-২ থেকে নির্জন সরকার, লেভেল-৩ থেকে তানভীর হাসান, লেভেল-৫ থেকে মারজিয়া আক্তার ডিন এ্যাওয়ার্ড পেলেন। নিজ নিজ ক্লাসে শ্রেষ্ঠ রেজাল্টের পাশাপাশি অন্যান্য বিষয় বিবেচনা করে পুরষ্কার হিসেবে মেডেল ও সনদ দেয়া হলো।

সিকৃবি ক্যাম্পাসে আয়োজন করে প্রথমবারের মতো কোন একটি অনুষদ এই ডিন এ্যাওয়ার্ড পুরষ্কার দিলো। শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করতে ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ডাঃ মোঃ জামাল উদ্দিন ভূঞা তৎক্ষণাৎ পুরষ্কারপ্রাপ্ত প্রতিটি শিক্ষার্থীকে আরো ৩ হাজার টাকা অর্থমূল্য পুরষ্কার প্রদান করেন। এছাড়াও এই অনুষদ থেকে “ভাইস-চ্যান্সেলর পুরস্কার” এর নাম ঘোষণা করা হয়। এ বছর ভাইস-চ্যান্সেলর পুরষ্কার পেলেন লেভেল-২ থেকে মতিয়া খান মৌটুসী, লেভেল-২ থেকে ফাতিমা মার্জিয়া আনিকা এবং লেভেল-৪ থেকে রাকিবুল হাসান। ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ডাঃ মোঃ জামাল উদ্দিন ভূঞা বলেন, “এই পুরষ্কার শিক্ষার্থীদের সফলতার জীবনের অন্যতম সোপান। এর মাধ্যমে ভবিষ্যতে আরো শিক্ষার্থীরা উৎসাহিত বোধ করবে।”

তিনি মেধাবী শিক্ষার্থীদের নিজস্ব জ্ঞান ও বুদ্ধির মাধ্যমে গবেষণায় যুক্ত হবার আহ্বান জানান এবং বাংলাদেশের ভেটেরিনারি সেক্টরে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য নিজেদের তৈরি করার অনুরোধ জানান। এদিকে কৃতি শিক্ষার্থীদের এই পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে একটি আনন্দঘন পরিবেশ তৈরি হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে কৃতি শিক্ষার্থীদের দুই অভিবাবক শ্রী নিধীরঞ্জন সরকার এবং কামরুন্নাহার মুক্তা তাদের অভিমত ব্যাক্ত করেছেন।

নিজেদের সন্তানদের পাশাপাশি অভিবাবকদের সম্মানিত করার জন্য তাঁরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ দিয়েছেন। পুরো অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রফেসর ড. সঞ্জয় সরকার।

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

ডিএস/বিআরএন

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।