ছবি: চ্যানেল অনলাইন

KSRM

 

৩৭১ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নামা ইংল্যান্ড দ্রুতই ৪ উইকেট হারিয়ে রীতিমত ধুকতে থাকে। পঞ্চম উইকেটে বিপর্যয় সামাল দেন বেন ডাকেট ও বেন স্টোকস। ফিফটি পাওয়ার পর ফাইন লেগে ডাকেটের ক্যাচ ধরেন মিচেল স্টার্ক। তৃতীয় আম্পায়ার মরিস এরাসমাস দিলেন নট আউটের সংকেত। টিভি রিপ্লেতে ক্যাচ নেয়ার দৃশ্য স্পষ্ট ছিল না। বলের নিচে স্টার্কের হাত আছে দেখা গেলেও এরাসমানের কাছে মনে হয়েছিল বল মাটি স্পর্শ করেছে। ডাকেট ক্রিজে থেকে যাওয়ায় লর্ডসের গ্যালারিতে স্বাগতিক দর্শকরা আনন্দে ফেটে পড়লেও অজি ফিল্ডাররা ছিলেন নাখোশ। দিনের খেলা শেষে তাদের দুই ফিল্ড আম্পায়ারদের ঘিরে ফেলে কথা বলতেও দেখা যায়।

Bkash July

শনিবার অ্যাশেজ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে উত্তেজনা ছড়ানো চতুর্থ দিন শেষে ইংল্যান্ড তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ উইকেটে করেছে ১১৪ রান। জয়ের জন্য এখনো তাদের প্রয়োজন ২৫৭ রান, হাতে আছে ৬ উইকেট। ডাকেট ৬৭ বলে ৬ চারে ৫০ ও বেন স্টোকস ৬৬ বলে এক চার ও এক ছক্কায় ২৯ রানে থেকে শেষ দিনের খেলা শুরু করবেন।

চালকের আসনে থেকেই অস্ট্রেলিয়া লর্ডস টেস্টের খেলা শুরু করেছিল। লাঞ্চ বিরতির পর ব্যাটিং ধসে ৪০ রান তুলে শেষ ৫ উইকেট হারালেও পায় ৩৭০ রানের বড় লিড।

Reneta June

২ উইকেটে ১৩০ রান নিয়ে অজিরা দিনের খেলা শুরু করে। উসমান খাজা ও স্টিভেন স্মিথ তৃতীয় উইকেটে ৬৪ রান যোগ করেন। ফিফটি তুলে নেয়া খাজা ১৮৭ বলে ১২ চারে ৭৭ রানের ধৈর্যশীল ইনিংস খেলে স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে ফাইন লেগে দ্বাদশ ফিল্ডার পটসের তালুবন্দি হন। খানিক পর সাজঘরে ফেরেন স্মিথ, ৬২ বলে ৫ চারে করেন ৩৪ রান। ব্রডের বলে জো রুটের হাতে ধরা পড়ার আগে মাত্র ৭ রান করেন ট্রাভিস হেড। ক্যাঙ্গারুদের ১৯৭ রানে পঞ্চম উইকেটের পতন হয়।

ক্যামেরন গ্রিন ও অ্যালেক্স ক্যারি লিড বাড়িয়ে নেয়ার কাজে মনোযোগ দিয়েছিলেন। ষষ্ঠ উইকেটে এ দুই ব্যাটার গড়েন ৪২ রানের জুটি। এরপরই নামে ধস। গ্রিন ১৮ ও ক্যারি ২১ রান করে ড্রেসিং রুমের পথ ধরেন। টেল এল্ডারদের নিয়ে স্কোর বাড়ানোর চেষ্টা করেন স্টার্ক, ১৫ রানে ছিলেন অপরাজিত। অধিনায়ক কামিন্স করেন ১১ রান। শেষদিকে বড় জুটি না হওয়ায় ২৭৯ রানে শেষ হয় অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় ইনিংস। অজিরা প্রথম ইনিংসে ৯১ রানের লিড থাকায় ইংলিশদের ৩৭১ রানের জয়ের লক্ষ্যমাত্রা দেয়।

ইংল্যান্ডের পক্ষে ব্রড নেন ৪ উইকেট। দুটি করে উইকেট পান জশ টাং এবং অলি রবিনসন।

থ্রি লায়নদের বাজবল ক্রিকেটকে শুরুতেই বল হাতে অকার্যকর বানিয়ে দেন স্টার্ক ও কামিন্স। দ্রুতই ৪ উইকেট হারিয়ে স্বাগতিকরা রীতিমত ধুকতে থাকে।

প্রথম দুই উইকেট তুলে নেন স্টার্ক। তার বলে ক্যারির গ্লাভসবন্দি হন তিন রান করা ওপেনার জ্যাক ক্রাওলি। অলি পোপও করেন তিন রান, হন বোল্ড।

৩৫ বলে ২ চারে ১৮ রান করা জো রুটের উইকেট তুলে নেন কামিন্স। প্রথম স্লিপে ক্যাচ ধরেন ডেভিড ওয়ার্নার। দলীয় ৪৫ রানের মাথায় কামিন্সের বলে বোল্ড হন চার রান করা হ্যারি ব্রুক।

পঞ্চম উইকেটে বিপর্যয় সামাল দেয়ার কাজ করছেন ওপেনার বেন ডাকেট এবং অধিনায়ক বেন স্টোকস। ৬৯ রানের অবিচ্ছিন্ন এই জুটির দিকেই তাকিয়ে রয়েছে ইংল্যান্ড।

Labaid

সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।