bairstow
ছবি: যমুনা

ছবি: সংগৃহীত

লর্ডস টেস্টে জনি বেয়ারস্টোর আউটটা এখন ক্রিকেট দুনিয়ায় সবচেয়ে আলোচিত টপিক। তিনি কি আউট ছিলেন? স্পিরিট অফ ক্রিকেটের সাথে আউটের এই ধরন কি মানানসই? এমন সব প্রশ্ন নিয়ে জোর বিতর্ক চলছে সবখানে। আলোচনা-সমালোচনায় বিভক্ত ক্রিকেট বিশ্ব। সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটারদের অনেকেই পক্ষে-বিপক্ষে দিচ্ছেন মত। বেয়ারস্টোর আউট নিয়ে ক্ষোভ ঝেড়েছেন ইংলিশ কোচ ব্রেন্ডন ম্যাককালামও। তবে, ক্রিকেট ক্যারিয়ারে ম্যাককালামও এমনই এক আউট করে জন্ম দিয়েছিলেন সমালোচনার। দ্য টেলিগ্রাফের খবর।

বেয়ারস্টোর আউটের পর ক্ষোভে ফেটে পড়েন নন স্ট্রাইকিং প্রান্তে থাকা অধিনায়ক বেন স্টোকস। বেয়ারস্টো নিজেও রাগে গজগজ করতে করতে মাঠ ছাড়েন। বিষয়টা এখানেই শেষ হয়নি। গ্যালারি জুড়ে স্লোগান শুরু হয়, “সেইম ওল্ড অজিস, অলওয়েজ চিটিং”।

খেলা শেষে শুরু হয় বাক্যবাণ ছোঁড়া। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই আউটের পক্ষে বিপক্ষে মত দেন সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটারদের অনেকে। ডেমিয়েন ফ্লেমিং, রবিচন্দ্রন অশ্বিনদের চোখে এটি আউট হলেও ব্র্যাড হগ কথা বলেছেন বেয়ারস্টোর পক্ষে।

jonny

এদিকে, ইংলিশ অধিনায়ক স্টোকস জানান, এমন কৌশলে তিনি কোনো ম্যাচ জিততে চান না। কোচ ব্রেন্ডন ম্যাককালাম তো আরেক কাঠি সরেস! তিনি বলেছেন, অজিদের সাথে বসে খুব শিগগিরই আর বিয়ার খাবেন না তিনি। যদিও তার মন্তব্য ঝড় তুলেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। অনেক বছর আগের এক ভাইরাল ফুটেজে দেখা যায়, সেঞ্চুরি করা সাঙ্গাকারাকে অভিনন্দন জানাতে ক্রিজ ছেড়ে এগিয়ে যাওয়া মুরালিধরনকে রান আউট করছেন খোদ ব্রেন্ডন ম্যাককালামই! পরবর্তীতে অবশ্য তোপের মুখে ক্ষমাও চেয়েছিলেন সাবেক এই ব্ল্যাকক্যাপস তারকা।

অপরদিকে, ইংলিশ কোচের বিয়ার বয়কটের কথায় হতাশা জানিয়েছেন অজি কোচ অ্যান্ড্রু ম্যাকডোনাল্ডও। তার মতে, প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচে সুযোগ এলে সেটা লুফে নেয়াই স্বাভাবিক।

jonny

অজি অধিনায়ক প্যাট কামিন্সও এই আউটকে বাড়াবাড়ি মনে করছেন না। কামিন্সের কথার সুর ছিল সাবেক ইংলিশ অধিনায়ক মাইক আথারটনের কণ্ঠেও। ধারাভাষ্যকক্ষেই তিনি বলেন, বেয়ারস্টো বোকার মতো কাজ করে প্রতিপক্ষকে সুযোগ করে দিয়েছে। কামিন্স কেন তাকে ছাড় দেবেন? আর স্পিরিট অফ ক্রিকেটকে এখানে টেনে আনার কোনো প্রয়োজন নেই।

বিতর্কিত এই আউটের ঘটনায় এই লর্ডস টেস্টেরই আরেকটি ভিডিও ফুটেজ ভাইরাল হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেখানে দেখা যায়, অস্ট্রেলিয়া যখন ব্যাট করছিলো তখন এই বেয়ারস্টোই একইভাবে বল ছুঁড়ে মারনাস লাবুশেনকে আউট করার চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু তিনি লক্ষ্যভ্রষ্ট হন।

লর্ডসে যে আগুন জ্বলেছে তার উত্তাপ যে পরের হেডিংলি টেস্টেও ছড়াবে, তা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়।

/এম ই


সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।