umedar news
ছবি: যমুনা

হাবিব রহমান:

দিনে মজুরি ৬০ টাকা। কিন্তু সম্পদ গড়ে তুলেছেন শত কোটি টাকার। এমন কোটিপতি উমেদারের সন্ধান মিলেছে যমুনা টেলিভিশনের ইনভেস্টিগেশন থ্রি সিক্সটি ডিগ্রির অনুসন্ধানে। নাম তার আব্দুস সোবহান। কাজ করেন তেজগাঁও রেজিস্ট্রি কমপ্লেক্সের মোহাম্মদপুর সাব-রেজিস্ট্রারের কার্যালয়ে।

আব্দুস সোবহান সেখানকার অস্থায়ী কর্মচারী। মাসে বেতন হিসেবে পান ১৮০০ টাকা। অর্থাৎ দৈনিক হিসেবে ৬০ টাকা। তবে যমুনা নিউজের অনুসন্ধানে ঢাকার মোহাম্মদপুরে তার ৮ তলা ভবনের সন্ধান মিলেছে। যার বাজার মূল্য আনুমানিক ২৫ কোটি টাকা। হিসেব করলে দেখা যায়, এমন একটি ভবন কিনতে গেলে তাকে সাড়ে ১১ হাজার বছর চাকরি করতে হবে!

বাড়িটির দেয়াল থেকে নম্বর নিয়ে কথা কথা হয় ভবনের দায়িত্বরত ম্যানেজারের সাথে। ফোনে তিনি জানান, মালিক আব্দুস সোবহান ভবনে থাকেন না, সবগুলো ফ্ল্যাট ভাড়া দেয়া।

শুধু ভবন নয়, এই ব্যক্তির স্ত্রী ও মেয়ের নামে আছে বেশ কিছু জমি, ফ্ল্যাট ও প্লট। অনুসন্ধানে দেখা যায়, এসব জমির অবস্থান রাজধানীর মোহাম্মদপুর ও বাড্ডায়। বায়তুল আমান হাউজিংয়েও তার ৩টি ফ্ল্যাটের খোঁজ পাওয়া গেছে। আছে ৫টি বিলাসবহুল গাড়ি। এছাড়া তার গ্রামের বাড়ি মাদারীপুরেও আছে বাড়ি-জমি।

এ ব্যাপারে মোহাম্মদপুরের সাব-রেজিস্ট্রার মো. শাহিন আলমের মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, দেখেন এ বিষয়টি আপনার কাছ থেকে আমি প্রথম অবগত হলাম। এমন কথা আগে কখনও শুনিনি। যেকোনো গণকর্মচারীর বিরুদ্ধে যদি কোনো সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকে, তাহলে চাকরিবিধি অনুযাযায়ী ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবো। পরবর্তীতে তারা যে ব্যবস্থা নেবেন, সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গৃহীত হবে।

এই আব্দুস সোবহান আরও কয়েকজনকে নিয়ে তেজগাঁও রেজিস্ট্রি অফিসে গড়ে তুলেছেন দুর্নীতির স্বর্গরাজ্য। তার হাতে জিম্মি অনেক সাব-রেজিস্ট্রাররা, একইভাবে জমি ক্রেতা-বিক্রেতারাও জিম্মি। তার বক্তব্য নিতে সম্প্রতি তার কর্মস্থলে যাওয়া হয়, তবে আসার খবর পেয়ে সরে পড়েন তিনি।

/এটিএম/এমএন


সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।