aWhZUtMjQyMTMLTEODgzNjcxMDdiZGpvdXJuYWwuanBn
ছবি: বিডি জার্নাল

ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে গত জুন মাসে প্রবাসীরা রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। দেশের সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে ২১৯ কোটি ৯০ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে যা গত ৩৫ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ প্রবাসী আয়।

গত বছরের একই মাসে প্রবাসী আয় এসেছিল ১৮৩ কোটি ৭২ লাখ ডলার। এর আগে ২০২০ সালের জুলাইয়ে ২৫৯ কোটি ৮২ লাখ রেমিট্যান্স এসেছিল। রোববার (২ জুলাই) কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রকাশিত হালনাগাদ পরিসংখ্যানে এ তথ্য জানা গেছে।

অর্থনীতিবিদরা বলেছেন, ২০২০ সালে করোনার বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল। এ কারণে সব ধরনের পরিবহন ব্যবস্থা বন্ধ থাকায় হুন্ডিও বন্ধ ছিল। ফলে প্রবাসীরা বৈধ পথে রেমিট্যান্স পাঠিয়েছিলেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, ঈদুল আজহার সময় প্রবাসীরা তাদের পরিবারের কাছে বেশি পরিমাণে অর্থ পাঠিয়েছেন। এ কারণে জুনে প্রবাসী আয় বেশি এসেছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী প্রবাসী বাংলাদেশিরা বৈধ পথে ও ব্যাংকিং চ্যানেলে ২০২২-২৩ অর্থবছরে ২ হাজার ১৬১ কোটি মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন। যা এ যাবৎকালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আহরণ। দেশে রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স এসেছিল ২০২০-২১ অর্থবছরে ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ডলার।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, ২০২২-২৩ অর্থবছরে প্রথম দুই মাসে রেমিট্যান্স ছিল ২০০ কোটি ডলারের ওপরে। অর্থবছরে প্রথম মাস জুলাইয়ে আসে ২০৯ কোটি ৬৩ লাখ ডলার এবং আগস্টে ছিল ২০৩ কোটি ৬৯ লাখ ডলার। এরপরে টানা পাঁচ মাস ২০০ কোটির ঘর ছুঁতে পারেনি রেমিট্যান্স।

সেপ্টেম্বরে আসে ১৫৪ কোটি ডলার, অক্টোবরে ১৫২ কোটি ৫৫ লাখ ডলার, নভেম্বরে ১৫৯ কোটি ৫১ লাখ, ডিসেম্বরে ১৬৯ কোটি ৯৭ লাখ, জানুয়ারিতে ১৯৫ কোটি ৮৮ লাখ, ফেব্রুয়ারিতে ১৫৬ কোটি ডলার এসেছে। এরপর মার্চে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়লেও এপ্রিল ও মে-তে আবারও হোঁচট খায়। সর্ব শেষ মাস জুনে কোরবানির ঈদের মাসে রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠান প্রবাসীরা।

২০২২-২৩ অর্থবছরে প্রবাসীরা সরকারি ৫টি ব্যাংকের মাধ্যমে ৩৩৯ কোটি ৯২ লাখ ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন। বিশেষায়িত একটি ব্যাংকে এসেছে ৫২ কোটি ২২ লাখ ডলার। বেসরকারি ৪০টি বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ১ হাজার ৭৬১ কোটি ২০ লাখ ডলার। বিদেশি ৬ ব্যাংকে প্রবাসীরা ৭ কোটি ৭১ লাখ ৮০ হাজার ডলার পাঠিয়েছেন।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, সদ্য বিদায়ী ২০২২-২৩ অর্থবছরে দেশে রেমিট্যান্স আহরণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ১৬১ কোটি ১০ লাখ ডলার। (বাংলাদেশি মুদ্রায় ২ লাখ ৩৪ হাজার ৪৭৫ কোটি টাকার বেশি)। এই অংক আগের অর্থবছরের চেয়ে ৫৭ কোটি ৯০ লাখ ডলার বেশি।

২০২১-২২ অর্থবছরে রেমিট্যান্স এসেছিল ২ হাজার ১০৩ কোটি ১৬ লাখ ডলার। ২০২০-২১ অর্থবছরে রেমিট্যান্স আসে ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৭০ লাখ ডলার। ২০১৯-২০ অর্থবছরে এসেছিল ১ হাজার ৮২০ কোটি ৫০ লাখ ডলার এবং ২০১৮-১৯ অর্থবছরে রেমিট্যান্সের পরিমাণ ছিল ১ হাজার ৬৪১ কোটি ৯৬ লাখ ডলার।

আরও পড়ুন…সর্বাধিক প্রবাসী আয় যেসব দেশের

বাংলাদেশ জার্নল/এএ/ওএফ


সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।